সাদা কাগজ
Would you like to react to this message? Create an account in a few clicks or log in to continue.
Go down
avatar
ধুমকেতু
ধুমকেতু
Posts : 12
স্বর্ণমুদ্রা : 480
মর্যাদা : 10
Join date : 2021-06-16
View user profile

ছেড়া প্যান্ট Empty ছেড়া প্যান্ট

Sat Aug 14, 2021 9:27 am
ছোট বেলা স্কুল থেকে বড়ো হয়ে চাকরি হবার পর্যন্ত একটা ছোট্ট ভয় থাকে, আর তা হল প্যান্ট ছেঁড়া। সব সময় সুই সুতা কাছে নাও থাকতে পারে তাই সর্বদা সতর্ক থাকা উচিত। যেমন আপনি ধরুন, আচ্ছা ছোটখাটো কাহিনীতে বলি।

একটি স্কুলের দুটো অংশ ,মাঝখানে রাস্তা, একপাশের গার্লস স্কুল ও বিপরীত পাশে বয়েজ স্কুল। গার্লস স্কুল আগে চটি হত এবং বয়েজ স্কুল 10 মিনিট পর। একদিন মফিজ সাহেবের ছেলে মিন্টু তার ভালোলাগা মেয়েটিকে দেখার জন্য দ্রুত দৌড়াতে লাগল কারণ হয়তো অনেক সামনে চলে গিয়েছে। বেচারার সাইকেলের টিউব লীগ সেজন্য আজ হেঁটে স্কুলে এসেছিলো। ফুটপাতের পুরো শরীর জুড়ে শুধু মেয়ে আর মেয়ে। তাই তাই ধাক্কাধাক্কি আর নারী নির্যাতন মামলায় না নাজড়ানোর জন্য সে মাঝ রাস্তায় দৌড়ানো শুরু করলো।
কিন্তু পথিমধ্যে রিক্সার সাথে ধাক্কা লেগে একটা শব্দ হলো। কেউ না শুনলেও মিন্টু শুনতে পেল। তখন নিচে তাকিয়ে দেখা গেল তার নেভী-ব্লু রং-এর প্যান্ট ফেটে তার কোমল ঘামে ভেজা অন্ত্রবাস ছাড়া অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ অনেকটাই বের হয়ে গেছে। রিক্সার সাথে তার ডান পা কেটে গিয়েছিল পকেট থেকে কয়েন কিছু পড়ে গেছে এ অবস্থায় তোলার মতো অবস্থা নেই। ওর এক বন্ধু সাইকেল নিয়ে যাচ্ছিল আর তখন সে অবস্থা দেখে সে হেসে ফেলে তাকে ওই টাকাগুলো ঘুষ দেয়ার কথা বলে ওকে সাহায্য করতে বলেন সে ব্যাগ খুলে স্টেপলার বের করে কিছুটা প্যান্ট লাগিয়ে দেয় এবং তার সাইকেলে করে বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছে।

গণিত ক্লাসে গুণিতক,গুণনীয়ক এর মধ্যে পার্থক্য নির্ণয় করতে দেয়া হলো বল্টুকে। আমতা আমতা করে বেরে গেলো এর পর মিম কে জিজ্ঞাসা করা হল কিন্তু সেও একদম আগের দিন কিছু পড়ে আসেনি। তাই বল্টু তার সাথে ভাব জমানোর জন্য উত্তরটা বলতে গিয়ে ছিল তখনই পাশের দুষ্টু রহিম স্যার কে তা জানিয়ে দিল। স্যার বল্টুকে হুকুম করল 20 বার কান ধরে উঠবস করার জন্য ঠিক পনেরো বাড়ার মাথায় বলব হাপিয়ে গেলে একটু স্মরণ করে বসে পড়ল সাথে সাথে তার শব্দ হলো তখন দাঁড়িয়ে গেল এবং পেছনে হাত দিয়ে রাখলো।

ক্লাসের সবচেয়ে দুষ্টু ছেলে ছিল তোহা। মাঝেমধ্যে হিজড়া স্টাইলে ডান্স দিতো আর সকলকে একটা করে লাথি মারতো। একদিন ঠিক এভাবেই সকলকে মারছিল আর তখনই ওর দুই দুষ্টু বন্ধু মোকলেস আর কুদ্দুসের একটা বুদ্ধি আসলো। ওরা দুজন একসাথে তহার কাছে আসলো এবং আস্তে আস্তে করে দুজন দুদিক যেতে লাগলো আর তোরা একলা গিয়ে দুজন কে লাথি মারতে গিয়ে একটা শব্দ হলো আর বাকিটা ইতিহাস। ওরা দু'জন ওকে স্কুল পালাতে সাহায্য করল।

একবার স্কুলে মার্শাল আর্ট শেখানোর জন্য বেশ কতগুলো গুরু এসেছিলেন। এখন নাদুসনুদুস হরিয়ানা বাদ দিয়ে ছোট করে চিকনি চামিলি গুলো জড়ো করে আত্মরক্ষা শিক্ষা দিতে লাগল। কিন্তু সমস্যা হল পাল্টাতে হবে মাথার উপরে আর তা করতে গিয়ে বেশিরভাগ ভাইবোনেরা এই মুহূর্ত থেকে আর আত্মরক্ষার কথা মুখে আনে নি।
টাইট ফিট ঘরোয়া প্যান্ট পড়ে কখন ফুটবল খেলতে যেতে নেই। সর্বদা প্যান্ট এর প্রতি সচেষ্ট থাকতে হবে। অবশ্যই অন্তর্বাস পরিধান করতে হবে। নাহলে ভবিষ্যৎ অন্ধকার।

Md alif, Md noman, Sarim khan, Zara afrin, Bapi mondol, Shamima akter, Jafia haque and লেখাটি পছন্দ করেছে

Back to top
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum